টেকনাফে মাদক ব্যবসা ফের জমজমাট: নারীসহ ৬ মাদকসেবী আটক

গিয়াস উদ্দিন ভুলু,কক্সবাজার জার্নাল ◑
টেকনাফ উপজেলার বেশ কয়েকটি পয়েন্ট দিয়ে মিয়ানমার থেকে পাচার হয়ে আসা ইয়াবার আগ্রাসন বৃদ্ধি হওয়ার পাশাপাশি অত্র উপজেলার বেশ কয়েকটি এলাকায় খুচরা মাদক বিক্রেতা ও মাদক সেবীদের অপতৎপরতা বেড়েই চলছে।

এদিকে মাদক পাচার প্রতিরোধ করার পাশাপাশি অত্র এলাকার মাদক সেবীদের আইনের আওয়তাই নিয়ে আসার জন্য, গত কয়েক দিন ধরে টেকনাফ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরে কর্মরত সদস্যরা পরিচালনা করে যাচ্ছে সাঁড়াশী অভিযান।

সেই সূত্র ধরে ১৯ সেপ্টেম্বর (শনিবার) রাতে গোপন সংবাদের মাধ্যমে তথ্য পেয়ে টেকনাফ পৌরসভা ১নং ওয়ার্ড নাইটংপাড়া, সদর ইউনিয়ন ৬নং ওয়ার্ড গুদারবিল এলাকায় পৃথক দুটি অভিযান পরিচালনা করে চিহ্নিত খুচরা মাদক বিক্রেতা এক নারীসহ ৬ মাদক সেবীকে আটক করতে সক্ষম হয়। এরপর টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম (সাইফ)’এর কাছে হাজির করলে তিনি ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে খুচরা বিক্রেতা মহিলাকে এক বছর এবং ৫ মাদক সেবীকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করে।

আটক অপরাধীরা হচ্ছে, টেকনাফ পৌরসভা ১নং ওয়ার্ড নাইটংপাড়া এলাকার মৃত আব্দু করিমের স্ত্রী চিহ্নিত মাদক বিক্রেতা মোহছেনা বেগম(৫০), একই এলাকার মৃত নাজির হোসেনের পুত্র মাদক সেবী আব্দুুল গফুর(৫৫), ২নং ওয়ার্ড পুরান পল্লানপাড়া এলাকার মৃত রফিকের পুত্র মোঃ ইয়াছিন(২৩), টেকনাফ সদর ইউনিয়ন ৬নং ওয়ার্ড মধ্যম গুদারবিল এলাকার মৃত নুরুল আলমের পুত্র খুচরা মাদক বিক্রেতা মোঃ ছলিম উদ্দিন(২৪), একই এলাকার ছৈয়দ আহাম্মদের পুত্র মাদক সেবী মোঃ সোহেল(২৮), মৃত আহাম্মদ হোসেনের পুত্র মোঃ জাকির হোসেন(২৫)।

এই অভিযান গুলোর সত্যতা নিশ্চিত করে টেকনাফ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা পরিদর্শক দেওয়ান মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান জানান মাদক পাচার নিয়ন্ত্রন করার জন্য মাদক ব্যবসায় জড়িত অপরাধী এবং মাদক সেবীদেরকে আইনের আওয়তাই নিয়ে আসতে মাদক বিরোধী চলমান এই অভিযানকে আরো জোরদার করা হবে।

তিনি আরো বলেন, অত্র এলাকার জনগন যদি মাদক পাচারে জড়িত অপরাধীদের অবস্থানের সঠিক তথ্য দিয়ে সহযোগীতা করলে আমাদের অভিযানে আরো বেশী সফলতা আসবে।